ঝালকাঠিতে সাংবাদিকের নামে মিথ্যা ধর্ষন মামলার অভিযোগ

প্রকাশ : অক্টোবর ১৪, ২০১৯, ৯:৩৫ পূর্বাহ্ণ

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ
ঝালকাঠি সদর থানায় সাংবাদিকের নামে মিথ্যা ধর্ষন মামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ০৬/১০/১৯ ইং তারিখে সাংবাদিক মোল্লা শাওনের নামে একটি মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক ধর্ষন মামলা রেকর্ড করা হয়। এজাহারে উল্লিখিত বাদিনীর নাম ঠিকানা সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে জানা যায়। এজাহার কপিতে উল্লিখিত ০৬ নম্বর স্বাক্ষী বাড়িওয়ালার ঠিকানা সঠিক পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে স্বাক্ষী রমজান আকন জানায়, এ ধরনের ঘটনা আমার বাড়িতে ঘটেনায়। এই ছলনাময়ী নারী একসময় আমার ভাড়াটিয়া ছিল। প্রতিদিন স্বামীর সাথে ঝগড়া হয় বলে আমি তাদের ১৫ দিনের মধ্যে চলে যেতে বলি। একপর্যায়ে তারা এক মাস পূর্ন হলে চলে যায়। যেহেতু মামলায় উল্লিখিত ১৫/০২/২০১৯ ইং তারিখে এই দুশ্চরিত্রা নারী আমার বাড়িতে ছিলনা। উল্লিখিত তারিখের এক মাস পূর্বে ১৫/০১/২০১৯ ইং তারিখে আমার ভাড়াটিয়া ঘর ছেরে চলে যায়। ঘর ভাড়া নেয়ার সময় তার পরিচয় পত্রে পাওয়া গেছে মঞ্জু বেগম। কিন্তু মামলার এজাহার কপিতে নাম দিয়েছে সালমা বেগম। সাংবাদিক মোল্লা শাওন আমার ছোট ভাই মিজান আকনের ভাড়াটিয়া ছিলেন প্রায় দুই বছর। আমার জানা মতে মোল্লা শাওন কখনো স্ত্রীর সাথে ঝগড়া করতে দেখিনাই। সাংবাদিক মোল্লা শাওন একজন ভালো মানুষ। তার বিরুদ্ধে কথিত ধর্ষন মামলার বাদিনীকে আইনের আওতায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে সত্য ঘটনা উদঘাটন করা হোক। এ বিষয় মোল্লা শাওনের বাড়িওয়ালা মিজান জানান, আমার বাড়িতে মোল্লা শাওন দীর্ঘ দুই বছর ভাড়াটিয়া ছিল। আমার ঘরেও বিয়ের যোগ্য মেয়ে ছিল আমার মেয়েও মোল্লা শাওনের বাসায় আসত যেত। কখনো আমার মেয়ের সাথে হাসি ঠাট্টা করতে দেখিনাই। বাড়িওয়ালা হিসেবে আমার প্রশাসনের কাছে একটাই দাবি, সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করে সত্যটা বের করা হোক। অবশেষে মামলার আসামি সাংবাদিক মোল্লা শাওনের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ যদি এক পার্সেন্ট সত্যি হয় তাহলে আমার নিজের ফাঁসি নিজেই চাই।

 



সর্বশেষ সংবাদ