• slide news
  • »
  • পিরোজপুরের ৮নং সমুদয়কাঠীর দূর্গাকাঠীতে প্রকল্পের টাকা আত্মসাদের অভিযোগ- মেম্বর অসীমের বিরুদ্ধে

পিরোজপুরের ৮নং সমুদয়কাঠীর দূর্গাকাঠীতে প্রকল্পের টাকা আত্মসাদের অভিযোগ- মেম্বর অসীমের বিরুদ্ধে

প্রকাশ : এপ্রিল ১২, ২০১৯, ৬:৪৬ অপরাহ্ণ

স্বরূপকাঠী প্রতিনিধিঃ

পিরোজপুরের ৮নং সমুদয়কাঠীর ৩নং দূর্গাকাঠীতে দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচীর প্রথম পর্যায়ে প্রকল্প ও প্রকল্পবাস্তবায়নে অসিম মেম্বরের বিরুদ্ধে ব্যপক  অভিযোগ পাওয়া গিয়াছে। নামে মাত্র টাকা দিয়ে বিদায় দেন শ্রমিকদের মেম্বর অসিম। দূর্গাকাঠী পোষ্ট মাস্টারের বাড়ী হইতে হরিপদ মাস্টারের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা পূনঃ নির্মান এ কাজে ৩০(ত্রিশ) জন শ্রমিক তালিকা ভূক্ত থাকলেও অর্ধেকেরও কম শ্রমিক দিয়ে কাজ করিয়ে নেন অসীম মেম্বর। নিজের আপন ভাইসহ চাচাতো-মামাতো ভাই-বোন এমনকি তাদের স্ত্রীদের নাম দিয়ে শ্রমিক লিস্টে কাজ না করিয়ে অবৈধ ভাবে টাকা তুলে নেন অসীম মেম্বর। পূর্বে একাধীক অভিযোগ রয়েছে বলে জানন এলাকাবাসী এ অসীম মেম্বরের বিরুদ্ধে। গত বৃহস্পতিবার স্বরূপকাঠী কৃষি ব্যাংক থেকে শ্রমিকরা টাকা উত্তোলন করার পর অসীম মেম্বর ও তার ভাই অশোক হালদার শ্রমিকদের পাশবহি এবং টাকা নিয়ে নেয় জোড় পূর্বক। কাজের বিনিময় শ্রমিকদের আংশিক টাকা দেওয়ার অভিযোগ করেন ভুক্ত ভুগীরা। এনিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃস্টি হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী শ্রমিকরা।

এলাকার সুশিল সমাজের লোকজন  জানন, জেলার নেছারাবাদ উপজেলার ৮ নং সমুদেকাঠী ইউনিয়নের ৩ নং দুর্গাকাঠী ওয়ার্ডের ইউ পি সদস্য অসীম কুমার হাওলাদার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৪০ দিন কর্ম সৃজনের কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) কর্মসূচির শ্রমিকদের মজুরির টাকা অত্যন্ত কৌশলে আত্মসাত করেন। ৪০ দিন শ্রমিকদের কাজ করিয়ে তাদের টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে ১০/১৫ দিন করে টাকা পেমেন্ট করেন। এছাড়া এ কাজে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের শ্রমিক নিয়োগ করার নিয়ম থাকলেও অন্য ওয়ার্ডের শ্রমিক নিয়োগ দেয়া হয়েছে যা সম্পূর্ণ নিয়ম বহির্ভূত। শ্রমিকরা অভিযোগ করলে গতকাল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে শ্রমিকদের জবানবন্দি ও শুনানি অনুষ্ঠিত হয় এবং অভিযোগের সত্যতা প্রাথমিক ভাবে নিশ্চিত হতে পেরেছেন। কি করে একজন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের অগোচরে এ ঘটনা হয়েছে তা সুশীল সমাজের বোধগম্য নয়। ইতিপূর্বে ও এই ওয়ার্ডে এমন ঘটনা ঘটেছে। ইউপি সদস্য তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের জবাবে বলেন এলাকাবাসী শত্রুতা করে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। এখন প্রশ্ন হলো যাকে ওয়ার্ডবাসী  ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন তার সাথে কিসের শত্রুতা। উক্ত এলাকা থেকে এবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও মাননীয় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী সত ও ন্যায় পরায়ণ ব্যাক্তি আদর্শ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যিনি নির্বাচনের পর শপথ গ্রহণ করেই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে ঘুষ ও দুর্নীতি মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লড়াইয়ে ঘোষণা দিয়েছেন। দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। সেই সনামধন্য মন্ত্রীর আসনে একজন মেম্বর কি করে শ্রমিকদের সাথে এমন দূর্নীতি করে?

উপজেলা নির্বাহী  কর্মকর্তার অফিসে গতকাল শ্রমিকদের সাথে ছুটে আসেন সাবেক ইউপি সদস্য জহর লাল বেপারীসহ প্রায় শতাধীক লোক। তাদের প্রানের দাবী অসীম মেম্বরের সুষ্ঠ বিচার। উপজেলা নির্বাহী  কর্মকর্তা সবার কথা শুনে পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য করেন।

 



সর্বশেষ সংবাদ