• slide news
  • »
  • বরগুনায় কোচিং বানিজ্য বন্ধে নেই কোনো পদক্ষেপ

বরগুনায় কোচিং বানিজ্য বন্ধে নেই কোনো পদক্ষেপ

প্রকাশ : নভেম্বর ২৭, ২০১৯, ৪:০৭ অপরাহ্ণ

মোঃ আসাদুল হক সবুজ, জেলা প্রতিনিধি বরগুনাঃ কোচিং বানিজ্য বন্ধে সরকারি নীতিমালা থাকলেও এর দৃশ্যমান প্রয়োগ না থাকায় শিক্ষকরা প্রশাসনকে পৃষ্ঠ প্রদর্শন করে যে যার মত কোচিং চালিয়ে যাচ্ছে। এমনকি আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকায় এজন শিক্ষক প্রশ্ন তুলছেন ডিসি স্যার তার ছেলেদের প্রাইভেট কোচিং এ পাঠালে শিক্ষকদের প্রাইভেট পড়াতে সমস্যা কোথায় ? গত (১৯ নভেম্বর) মঙ্গলবার সকাল ৯ টায় বরগুনা সদর উপজেলার ফুলঝুড়ী বাজারে ফুলঝুড়ি মাধ্যমিক বিদ্যলায়ে শিক্ষকদের কোচিং করানোর সময় সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে শিক্ষকগন সটকে পড়েন। অপরদিকে বিদ্যালয় মাঠ সংলগ্ন একটি ঘরে কোচিং করাতে দেখাযায় বদরখালী ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার ইংরেজি প্রভাষক মো: জামাল হোসেনকে। তিনি তার নিজ প্রতিষ্ঠানের ২০ জন শিক্ষাথী নিয়ে কোচিং করাচ্ছেন। তিনি অকপটে কোচিং করানোর কথা স্বীকার করেন। তার মতে কোচিং কোন অপরাধ নয়। তিনি সাংবাদিকদের পাল্টা প্রশ্ন করেন ডিসি স্যার তার ছেলেকে ও কোচিংএ পাঠান তবে আমি কোচিং করলে দোষ হবে কেন ? শিক্ষক জামাল হোসেন বলেন, আমি একা নই জেলা ও গার্লস স্কুল সহ অনেক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা কোচিং করান। আপনার প্রতিষ্ঠানে কোচিং করানোর কোনো লিখিত অনুমতি আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন মৌখিক অনুমতি দেয়া হয়েছে। বদরখালি ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো: আশ্রাব আলী বলেন, প্রতিষ্ঠান হতে কাউকে কোচিং করানোর অনুমতি দেয়া হয়নি। কেউ কোচিং করালে তার দায় সংশ্লিষ্ট শিক্ষককেই নিতে হবে। প্রতিষ্ঠানের কোচিং কখনো প্রতিষ্ঠানের বাইরে হতে পারেনা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বানিজ্য বন্ধ নীতিমালা ২০১২ এর অনুচ্ছেদ ৩ এ উল্লেখ আছে কোন শিক্ষক তার নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে কোচিং করাতে পারবেন না। কিন্তু অধিকাংশ শিক্ষকই এ নীতিমালার তোয়াক্কা না করে কোচিং চালিয়ে যাচ্ছেন। গত ১৯ নভেম্বর ফুলঝুড়ির কয়েকজন শিক্ষককে কোচিং করানোর বিষয়ে সতর্ক করা হলে কিছু শিক্ষক কোচিং বন্ধ রাখলেও কোচিং চালিয়ে যাচ্ছেন বদরখালী ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার ইংরেজি প্রভাষক মো: জামাল হোসেন। তিনি যোগাযোগ মাধ্যম তার ফেসবুক আইডিতে উল্টো কোচিংএর পক্ষে সাফাই গাইছেন। অভিভাবকদের অভিযোগ শুধু নীতিমালা করে বসে থাকলেই এ সমস্যার সমাধান হওয়া সম্বব নয়। এর জন্য দরকার কঠোর নজোরদারী। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষাও উন্নয়ন) কে সভাপতি করে জেলার ৮ সদস্যের একটি মনিটরিং কমিটির কাঠামো থাকলে ও তা নীতিমালার মধ্যেই সীমাবদ্ধ, এমন অভিযোগ স্থানীয় সচেতন মহলের। তাদের অভিযোগ কোচিং বন্ধের নীতিমালার ১৩ অনুচ্ছেদের (ক) এ শাস্তি হিসাবে উল্লেখ, আছে এমপিও ভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিভুক্ত কোনো শিক্ষক কোচিং বানিজ্যে জড়িত থাকলে তার এমপিও স্থগিত, বাতিল, বেতন ভাতাদি স্থগিত, বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি স্থগিত, বেতন এক ধাপ অবনমিত করণ, সময়িক বরখাস্ত, চুড়ান্ত বরখাস্ত ইত্যাদি শাস্তিমূলক ব্যবস্থা কর্তৃপক্ষ গ্রহণ করবে। এ বিষয়ে কোচিং বন্ধে জেলা মনিটরিং কমিটির সদস্য সচিব, ও জেলা শিক্ষা অফিসার বরগুনা মো শাহাদাত হোসেন জানান, কোন শিক্ষক কোচিং করাতে পারবে না। কেউ কোচিং করালে তার বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 



সর্বশেষ সংবাদ
বরগুনায় প্রধান শিক্ষকের ব্যাপক অনিয়ম, এলাকাবাসীর ক্ষোভ প্রকাশ স্বরূপকাঠীতে পয়ঁত্রিশজন জুয়াড়ী আটক “শিশির ভেজা রাত” রওশন কবীর নেছারাবাদে(স্বরূপকাঠী) কমিউনিটি পুলিশিং ও ওপেন হাইজ-ডে অনুষ্ঠিত বরগুনায় কোচিং বানিজ্য বন্ধে নেই কোনো পদক্ষেপ স্বরূপকাঠীতে  লবন মজুদের জন্য ভ্রাম্যমান আদালত- বিশ হাজার টাকা জরিমানা রিফাত হত্যা : প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন ২৮ নভেম্বর। তিন আসামির জামিন নামঞ্জুর স্বরূপকাঠীতে বুলবুলের আঘাতে বসত ভিটা কেড়ে নিল আবু হানিফের মরণফাঁদ দিয়ে উঠতে হয় খেয়া পারাপারে , অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছে যাত্রীদের থেকে!! বরগুনা রিফাত হত্যা : প্রধান আসামির স্বীকারোক্তি প্রত্যাহারের আবেদন