• slide news
  • »
  • স্বরূপকাঠীতে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী নিয়ে সরকারী দলে টান টান উত্তেজনা

স্বরূপকাঠীতে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী নিয়ে সরকারী দলে টান টান উত্তেজনা

প্রকাশ : জানুয়ারি ১২, ২০১৯, ৩:২৭ অপরাহ্ণ

সংবাদ প্রতিদিন#
জাতীয় সংসদ নির্বাচনের হাওয়া শেষ হতে না হতেই আগাম শুরু হয়ে গেছে উপজেলা নির্বাচনী হাওয়া। পরিবেশ ও পরিস্থিতি ঠিকঠাক থাকলে আগামী মার্চ মাসে উপজেলা নির্বাচন নিশ্চিত বলে রাজনৈতিক যোদ্ধারা মনে করেন। আগামী মার্চ মাসে উপজেলা নির্বাচনের সম্ভাব্য সময়। অবশ্য এবারের নির্বাচন দলীয় প্রতীকে না কি বিগত নির্বাচনের মত হবে। এদিকে দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন হলে পরিবেশ হবে ভিন্ন আঙ্গিকে। আর দলের প্রতীক ছাড়া নির্বাচন হলে সমগ্র বাংলাদেশের পরিস্থিতি হবে আর এক রকমের স্বাদ। যদিও স্থানীয় রাজনীতিতে বিগত সময়ে দলীয় প্রতীক বরাদ্ধ করায় আওয়ামী লীগ সরকার কম বেশী আলোচিত বা সমালোচিত হয়েছে। এ ব্যাপারে সরকার দলীয় বিজ্ঞ নেতারা সংবাদ প্রতিদিনকে জানান, আসলে বিগত সময়ের মত দলের প্রতীক বরাদ্ধ দিলে বেশীর ভাগ বিজ্ঞ ও জনপ্রিয় নেতারা হারিয়ে যাবে। স্ব স্ব এলাকায় ত্যাগী নেতারাও প্রতীক পায় না। অভিযোগ উঠেছিল সাবেক এমপি একেএমএ আউয়ালের বিরুদ্ধে।অবশ্য এবারের পরিবেশ ভিন্ন আর তার কারন সুবক্তা, বিশিষ্ট আইনজীবি ও বর্তমান মন্ত্রী এ্যাড. শ ম রেজাউল করিম।
এ ব্যাপারে উপজেলার বিজ্ঞ রাজনীতিবিদরা সংবাদ প্রতিদিনকে জানান, দলের প্রতীক নিয়ে হোক আর প্রতীক ছাড়া হোক এবারের উপজেলার নির্বাচন হবে ভিন্ন আঙ্গিকে। অবশ্য বিগত সময়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম মুইদুল ইসলামের প্রচুর গ্রহন যোগ্যতা থাকা সত্বেও তাকে বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল। শুধু তাই নয় সাবেক এমপি নিজ দলীয় স্থানীয় নেতাদের নিয়ে তামাশা ও করেছেন। এদিকে এত কিছুর পর এবার হবে মেধার ও জনপ্রিয়তার খেলা। স্থানীয় আওয়ামী লীগে এবারের উপজেলা নির্বাচনে বাঘা দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর নাম শোনা যায়। একজন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম মুইদুল ইসলাম। আর একজন স্বরূপকাঠী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. এসএম ফুয়াদ। যদিও নেছারাবাদ উপজেলায় জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে এসএম মুহিদ বেশ এগিয়ে। তবে এটাও সত্য এ্যাড. ফুয়াদও হাল ছাড়ার লোক নয়। আসলে সব কিছু আবার নির্ভর করবে স্থানীয় পর্যায়ের দলের ভিতরের কিছু গোপন রাজনীতির দিকনির্দেশনা। আসল কলকাঠী কে নাড়ায় তাও দেখার মূখ্য বিষয়। তবে এত কিছুর পরও হয়তো কে শেষ হাসি হাসবে। আর তারই অপেক্ষায় স্বরূপকাঠীবাসী।

 



সর্বশেষ সংবাদ